0 টি ভোট
"রসায়ন" বিভাগে করেছেন (159 পয়েন্ট)
একটি যৌগকে  কীভাবে/কী বৈশিষ্ট্য দেখে বুঝব যৌগটি অম্ল  ধর্মীয় নাকি ক্ষারক ধর্মীয়??? অম্ল ও ক্ষারের উদাহরণ সহ??

2 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (36 পয়েন্ট)
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন
অম্ল টক স্বাদযুক্ত ও নিল লিটমাস কাগজকে লাল করে।ক্ষারক পিচ্ছিল কটু স্বাদযুক্ত ও লাল লিটমাসকে নিল করে।অম্লতে এক বা একাধিক হাইড্রোজেন থাকে ও অম্ল পানিতে হাইড্রোজেন দানকরে। ক্ষারক পানিতে (OH-)উতপন্ন করে।
0 টি ভোট
করেছেন (3.1k পয়েন্ট)
আসলে ক্ষার ও এসিড বাহ্যকভাবে দেখে সবক্ষেত্রে চেনা যায়না।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টেস্ট করতে হয়।

বাহ্যিক বৈশিষ্টঃ -

এসিডঃ এসিড হচ্ছে তরল পদার্থ। অন্য অবস্থায় থাকেনা।

ক্ষার বা ক্ষারকঃ ক্ষার তরল অবস্থা হলেও ক্ষারক মূলত অক্সাইড বা হাইড্রোক্সাইড বা লবন। তাই ক্ষারকের কঠিন অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। যেমন গুড়া গুড়া সোডা।

এসিডের ক্ষেত্রে এ ধরনের অবস্থা দেখা যায়না। যদি দেখা যায় তবে তার গাঠনিক নামে ভিন্নতা থাকে। যেমন কেরাম খেলার সময় যে বোরিক ব্যবহার করি তা হচ্ছে বোরিক এনহাইড্রাইড। অথচ তা গরম পানিতে গলে নিলেই বোরিক এসিড বলে পরিচিতি পায়।

গ্লাসিয়াস এসিটিক এসিড কঠিন কিন্তু তখন সেটি এসিড বৈশিষ্ট্য থাকেনা।

টেস্ট হচ্ছে প্রকৃত চেনার উপায়ঃ-

এসিড এ নীল লিটমাস কাগজ দিলে লাল হয়। কাজেই যে পদার্থ নীল লিটমাসকে লাল করে তা এসিড।

লিটমাস না পেলে জবা ফুলের রস বা রঙ্ঘন ফুলের রস বা মূল দিয়েও টেস্ট করা যায়। এই রস এসিডের সংস্পর্শে লাল হয় আর ক্ষারের সংস্পর্শে নীল রঙ ধারণ করে।

এই হল অম্ল ক্ষারক চেনার বেসিক কিন্তু কার্যকর উপায়।

এছাড়াও অনেক পদ্ধতি রয়েছে। বিক্রিয়াজনিত পদ্ধতি রয়েছে, জলীয় আয়নগত বৈশিষ্ট রয়েছে কিন্তু সেগুলো জটিল এবং নিশ্চিত হতে কয়েকটা টেস্ট করতে হয়। একটি পদ্ধতি একক ভাবে নিশ্চয়তা দেয়না।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
2 টি উত্তর
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
25 মার্চ "রসায়ন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Naeem (542 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
13 ফেব্রুয়ারি "রসায়ন বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রিপন (3.1k পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
22 অক্টোবর 2020 "রসায়ন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Prima (67 পয়েন্ট)
4 Online Users
0 Member 4 Guest
Today Visits : 4157
Yesterday Visits : 2293
Total Visits : 5081873
...