"বায়োলজি বই" বিভাগে করেছেন
ব্যাপন ও অভিস্রবণ বলতে কি বোঝায়?

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
ব্যাপনঃ কোন পদার্থকে মুক্ত ভাবে রাখলে ঐ পদার্থের ঘনত্বের জন্য অপেক্ষাকৃত কম ঘন স্থানের দিকে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে ছড়িয়ে পড়াকে ব্যাপন বলে। যেমন ঘরের এক স্থানে সেন্টের শিশির মুখ খুলে রাখলে শিশির ভেতরের ঘন সুগন্ধ ঘরের বাতাসে সবদিকে ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ে। একে ব্যাপন বলে। আবার গ্লাসে খুব সতর্কভাবে পানি না নেড়ে এক চামস চিনি পানিতে দিলে তা প্রথমে তলায় জমা হবে কিন্তু আসতে আসতে মিষ্টি সমস্ত পানিতে ছড়িয়ে পড়বে। এই ছড়িয়ে পরার প্রক্রিয়াই হল ব্যাপন।

বদ্ধ পাত্রেও ব্যাপন হয় কিন্তু তা পাত্রের ভেতরেও সীমাবদ্ধ থাকে। যেমন বড় শিশির তলায় এক ফোটা সেন্টের তরল রেখে মুখ বন্ধ করে রেখে দিলে তরল ফোটাটি তলাতে থাকলেও সেন্টের সুগন্ধ শিশির ভেতর সব স্থানে সমান ছড়িয়ে পড়ে। মুখ খুলে দিলে তা বাইরেও ছড়ায়।


অভিস্রবণঃ অভিস্রবণ হচ্ছে, ভিন্ন ঘনত্বের দুটি তরল পদার্থ একটি বৈষম্য ভেদ্য পর্দা দ্বারা পৃথক করে রাখলে কম ঘনত্বের দ্রবন থেকে উচ্চ ঘনত্বের দ্রবণের দিকে দ্রাবক(তরল) পদার্থ প্রবাহিত হওয়াকে অভিস্রবণ বলে।

দ্রাবকের এই প্রবাহ ততক্ষণ থাকে যতক্ষণ দুটি দ্রবণের ঘনত্ব একই হয়।

অভিস্রবণ দ্রবণের পরিমানের উপর নির্ভর করেনা। এক গ্লাস পরিমাণ থেকে এক বালতি বা দশ বালতি পরিমাণের দিকেও অভিস্রবণ হতে পারে যদি গ্লাসের দ্রবনের ঘনত্ব বালতির দ্রবণের ঘনত্ব অপেক্ষা কম হয়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি উত্তর
1 উত্তর
1 উত্তর
29 মে "বায়োলজি বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Waruf
1 উত্তর
01 মে "বায়োলজি বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Waruf
3 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 3 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 6614
...