"উদ্ভিদ বিজ্ঞান বই" বিভাগে করেছেন
৮ম শ্রেণী ৪ নাম্বারের জন্য  

1 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
অঙকুরোদগমঃ বীজ থেকে চারা(শিশু উদ্ভিদ) গজানোকে অঙকুরোদগম বলে।

নিম্নে অঙকুরোদমের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করা হলঃ-

জীব জগতে দুটি ভিন্ন উদ্ভিদ ও প্রাণী জগতের মধ্যে শুধু উদ্ভিদ জগতই সালোকসংশ্লেষন প্রক্রিয়ায় নিজের খাদ্য নিজে প্রস্তুত করতে পারে।

তাই পৃথিবীর জীব জগত টিকে থাকে উদ্ভিদ এর কোন বিকল্প নাই। আর এই উদ্ভিদ বংশ বিস্তার করে যে প্রজননের মাধ্যমে, তার একটু গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে বীজের অঙ্কুরোদগম। ফলে এই অঙ্কুরোদগমের উপরেই টিকে আছে সমস্ত জীবজগত। নিম্নে পয়েন্ট আকারে গুরুত্ব ব্যাখ্যা করা হলঃ-

১। বীজ থেকে চারা গজিয়ে উদ্ভিদের বংশ রক্ষায় এর গুরুত্ব অপরিসীম।

২। মাতৃ উদ্ভিদের চরিত্র গুনাগুন বৈশিষ্ট্য বহুদিন পর্যন্ত টিকিয়ে রাখায় এর কোন বিকল্প নাই।

৩। সময়ের সাথে পরিবর্তিত প্রাকৃতিক পরিবেশের সাথে অভিযোজিত উদ্ভিদ বংশ ধারা পেতে অঙকুরোদগমের বিকল্প নাই।

৪। সহজে নতুন জীবনী শক্তি সম্পর্ণ চারা উদ্ভিদ পেতে অঙ্কুরোদগমের প্রয়োজন আছে। অঙ্গজ বা শাখার মাধ্যমে প্রজনন এর চারা পূর্ন জীবনী শক্তি পাইনা।

৫। সংকরায়ন করে উন্নত উদ্ভিদ সৃষ্টির জন্য বীজ উৎপাদন একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় কাজেই তা থেকে উন্নত কাঙ্খিত উদ্ভিদ পেতে সেই বীজের অঙ্কুরোদগম আবশ্যক।

৬। নতুন বৈশিষ্ট্য যুক্ত  অভিব্যক্তি, পরিব্যক্তি ও বৈচিত্রময় উদ্ভিদ জগত পেতে জীনের পূনঃবিন্যাস ও তা থেকে নতুন বংশ ধারা পেতে অঙকুরোদমের বিকল্প নাই।

৭। অঙকুরোদগম না হলে উদ্ভিদের বংশ দ্বারা শেষ হয়ে যাবে বিধায় সমস্ত প্রাণীকূল খাদ্য, আশ্রয় ও উদ্ভিজ্য সামগ্রী থেকে বঞ্চিত হবে। ফলে প্রাণীকূল বিলুপ্ত হয়ে যাবে। 

৮। খাদ্য উৎপাদনের সাথে সরাসরি যুক্ত উদ্ভিদ যেমন ধান, গম, সরিষা, তরকারী ইত্যাদি প্রথম বর্ষেই বিলুপ্ত হয়ে যাবে ফলে তাৎক্ষনিক ভাবে প্রাণিকূল খাদ্যাভাবে পতিত হবে যার পরিনাম ভয়াবহ।

তাই বলা যায় যে উদ্ভিদের অঙকুরোদগমের উপরেই নির্ভর করছে উদ্ভিদ জগত সহ প্রাণীজগত তথা মানব জাতির বেচে থাকার উপায়। কাজেই জীব জগত রক্ষায় অঙকুরোদগম অপরিহার্য্য। 
করেছেন
অসংখ্য ধন্যবাদ।।। 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

3 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 3 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 2362
...