"উদ্ভিদ বিজ্ঞান বই" বিভাগে করেছেন

ছোলাবীজটির মৃদগত অঙকুরোদগম হবে-বিশ্লেষণ কর।(বড় করে উত্তর দেবেন)।

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
মৃদগত অঙকুরোদগমঃ যে অঙকুরোদগমের ফলে, বীজের ভ্রুণ কান্ডটি মাটি ভেদ করে উপরে উঠে আসে কিন্তু বীজপত্র মাটির ভেতর থেকে যায় তাকে মৃদগত অঙকুরোদগম বলে। যেমন ছোলাবীজের অঙকুরোদগম। 

ছোলাবীজের অঙকুরোদগমঃ ছোলা বীজ একটি অসস্যল দ্বিবীজপত্রী বীজ। মাটিতে ছোলা বীজ বপন করে পরিমিত পানি, তাপ ও বায়ুর ব্যবস্থা করলে দুই তিন দিনের ভেতর বীজ থেকে অঙকুর বের হয়ে মাটির উপরে উঠে আসে। পানি পেয়ে বীজ ফুলে ওঠে এবং বীজে সঞ্চিত খাদ্য জারনের মাধ্যমে শক্তি তৈরি করে ফলে বীজের ভ্রুণ মুল বিভাজিত ও বৃদ্ধি পেয়ে ডিম্বকরন্ধ্র দিয়ে বাইরে বেরিয়ে প্রধান মূলে পরিণত হয়। দ্বিতীয় ধাপে ভ্রুণমুকুল শীর্ষস্থ ভ্রুণ ভাজক টিস্যুর বিভাজনের ফলে ভ্রুণকান্ড গঠন করে মাটির উপরে উঠে আসে। ভ্রুণ কান্ড সরু ও বৃদ্ধি থাকে অতি দ্রুত তাই  বীজের বীজপত্র দুটি মাটির ভেতরেই থেকে যায়। প্রাথমিক অবস্থায় ভ্রুণ তার খাদ্য বীজ পত্রের সঞ্চিত খাদ্য থেকে পেয়ে থাকে। কিন্তু অতি দ্রুত বৃদ্ধির ফলে ভ্রুণ দ্রুত প্রাথমিক পাতা সৃষ্টি করে সালোকসংশ্লেষনে অংশ নেয় বলে বীজপত্রের উপরে ওঠার প্রয়োজন পড়েনা বলে মাটির নিচে থেকে যায়।  তাই ছোলা বীজের এক্ষেত্রে মৃদগত অঙকুরোদগম হয়। 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
6 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 6 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 1689
...