0 টি ভোট
"রসায়ন বই" বিভাগে করেছেন (267 পয়েন্ট)
জারন বিজারণ ও জারিত বিজারিত বলতে কি বোঝায়?

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (3.1k পয়েন্ট)

জারন বিজারন বিস্তারিত এখানে দেখুন।


জারিতঃ জারণ হচ্ছে কোন পরমানুর ইলেক্ট্রন ত্যাগ। কিন্তু রাসায়নিক বিক্রিয়ায় একটি মৌলের পরমানু কখনো এমনি এমনি কোন ইলেক্ট্রন ত্যাগ করেনা। ইলেক্ট্রন ত্যাগ করতেও ঐ পরমানুর একটি শক্তি দরকার হয়। আবার ইলেক্ট্রন ত্যাগ করলেও সেই ইলেক্ট্রন কখনো মুক্ত অবস্থায় থাকেনা। ইলেক্ট্রন ত্যাগ তখনই সম্ভব যখন সেই ইলেক্ট্রন গ্রহন করার জন্য অন্য কোন মৌল বা পরমানু বা যৌগ থাকবে। যদি তা না থাকে তবে কখনোই কোন পরমানু ইলেক্ট্রন ত্যাগ করতে পারবেনা। 

কাজেই যখন কোন পরমানু ইলেক্ট্রন ত্যাগ করে তখন তাকে জারন বলে। আর ঐ ইলেক্ট্রন, 

যে পরমানু গ্রহন করে তাকে তাকে জারক বলে। কারন গ্রহনকারী পরমানু বা জারক না থাকলে অন্য পরমানু জারন হতে পারেনা। জারক বিক্রিয়াকে বলে জারন। 


উদাহরন, Na + Cl এর ক্ষেত্রে

Na  - e-=> Na+  + e- সোডিয়াম ইলেক্ট্রন ত্যাগ করেছে তাই সোডিয়াম বিজারক এবং সোডিয়াম নিজের জারন হয়েছে।

Cl + e- = Cl- ক্লোরিন ইলেট্রন গ্রহন করেছে, তাই ক্লোরিন হচ্ছে জারক। এবং বলা হয় ক্লোরিন নিজে বিহারন হয়েছে। কাজেই ক্লোরিন বিজারিত। 

কাজেই বিজারিত শব্দটি দ্বারা বোঝানো হয় ইলেক্ট্রন গ্রহন করে একটি নতুন আয়ন বা যৌগ গঠন করেছে। কারন উদাহরনে ক্লোরিন বিজারিত হয়ে সোডিয়ামের সাথে যৌগ গঠন করেছে। 


বিজারকঃ কাজেই যে পরমানু রাসায়নিক বিক্রিয়ায় ইলেক্ট্রন ত্যাগ ত্যাগ অন্য পরমানুকে জারিত করে তাকে বিজারন বলে। কারণ ইলেক্ট্রন ত্যাগ করলে তা একই সাথে গ্রহনও করা লাগবে । তাই জারন-বিজারণ যুগপৎ ঘটে। 


কাজেই বিজারিত শব্দের অর্থ হচ্ছে বিজারক কতৃক ত্যাগকৃত ইলেক্ট্রন গ্রহন করা। 


সহজ ভাবে, ইলেক্ট্রন ত্যাগকারী হচ্ছে বিজারক, আর যে গ্রহন করে তাকে বিজারিত বলা হয়। 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
0 টি উত্তর
13 ফেব্রুয়ারি "রসায়ন বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রিপন (3.1k পয়েন্ট)
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
13 ফেব্রুয়ারি "রসায়ন বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রিপন (3.1k পয়েন্ট)
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
13 ফেব্রুয়ারি "রসায়ন বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রিপন (3.1k পয়েন্ট)
5 Online Users
0 Member 5 Guest
Today Visits : 3991
Yesterday Visits : 2293
Total Visits : 5081708
...