"পৌরনীতি ও নাগরিকতা" বিভাগে করেছেন
পরিবার কাকে বলে? 

পরিবারের কাজ কি?

1 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন
আদর্শ পরিবারের কার্যাবলিঃ
একটি পরিবার ঐ পরিবারের সদস্যদের সুন্দর ও নিরাপদ জীবন গড়ে তোলার জন্য নানাবিধ কাজ করে থাকে। এছাড়াও অন্যন্য অনেক কার্যাবলি পরিবার সম্পাদন করে থাকে তা নিন্মে দেওয়া হলঃ-

১। জৈবিক কাজঃ আমাদের মা বাবা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার ফলেই আমরা জন্ম গ্রহন করেছি এবং তাদের দ্বারা লালিত পালিত হচ্ছি। অর্থাৎ সন্তান জন্মদান ও লালন পালন করার একমাত্রা বৈধ কাজ পরিবারের হাতেই। অর্থাৎ সন্তান জন্মদান তাদের বড় করা আদর স্নেহ মায়া মমতা, স্বামী স্ত্রীর ভালবাসা ইত্যাদি পরিবারের কাজ। এই কাজ গুলোকে জৈবিক কাজ বলে।
২। শিক্ষামূলক কাজঃ-

পরিবার হচ্ছে শিশুর প্রাথমিক শিক্ষাঙ্গণ। একটি শিশু বিদ্যালয়ে যাওয়ার পূর্বেই বিদ্যালয় সম্পর্কে ধারণা, আদর্শলিপি বা বর্ণমালা গুলো পরিবারের কাছ থেকে শিখে থাকেন। তাছাড়া মা বাবা, ভাই বোন ও পরিবারের অন্যন্য সদস্য দ্বারা শিশু সততা, ন্যায় নিষ্ঠ, আদর স্নেহ, ভালবাসা, শিষ্ঠাচার, উদারতা, নিয়মানুবর্তিতা, অন্যায় করলে শাসন বা শাস্তি ইত্যাদি শিক্ষাগুলো পেয়ে থাকে। একটি শিশুর মানবিক গুণাবলী ও তার বিকাশ পরিবার থাকেই লাভ হয়। এগুলো পরিবারের শিক্ষামূলক কাজ।

৩। অর্থনৈতিক কাজঃ পরিবারের সকল সদস্যদের খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষা প্রভুতি চাহিদা পরিবার পূরণ করে থাকে। পরিবারের সদস্যরা বিভিন্নভাবে অর্থ উপার্জনের মাধ্যমে এসব চাহিদা মিটিয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে পারিবারিক কৃষি খামার, পারিবারিক দুগ্ধ খামার, হাস মুরগী পালন, পুকুরে মাছ চাষ, বাড়ির আশে পাশে শাক সবজি ফলানো, কুটির শিল্প বা হস্তশিল্প ইত্যাদি প্রতাক্ষ ভাবে পরিবার অর্থনৈতিক ভাবে করে থাকে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অভূতপূর্ব উন্নতির ফলে এই সকল অর্থনৈতিক কর্ম আরও বিজ্ঞান সম্মত ও উন্নত ভাবে পরিবার সম্পাদন করে থাকে। এছাড়া পরিবারে দিনের পর দিন এসকল অর্থনৈতিক বিচিত্র কাজ প্রসার লাভ করছে। ফলে মানুষের বা পরিবারের সকলের নতুন নতুন কর্মস্থলের সৃষ্টি হচ্ছে।
তাই বলা যায় যে আমাদের সকল অর্থনৈতিক চাহিদা পরিবারই পূরণ করে থাকে।
৪। রাজনৈতিক কাজঃ একটি পরিবারে সাধারণত মা বাবা বা বড় ভাই বোন আমাদের অভিভাবকের ভূমিকা পালন করে থাকে। তারা আমাদের নানা উপদেশ দেন, ন্যায় অন্যায়ের শিক্ষা দেন। আমরা তা মেনে চলি। তারাও আমাদের অধিকার রক্ষায় কাজ করেন। আমাদের আবদার গুলো তারা রক্ষা করেন। পরিবারের অভিভাবক ও অন্যন্য বড় সদস্যরা যেমন দাদা দাদি, কাকা ইত্যাদি সদস্যরা আমাদের বুদ্ধি বিবেক ও আত্মসংযমের শিক্ষা দেন যা আমাদের সুনাগরিক হতে সসাহায্য করে থাকে। এভাবে পারিবারিক শিক্ষা মেনে চলার মাধ্যমেই একটি পরিবারে শিশুর রাজনৈতিক শিক্ষা শুরু হয়। এ শিক্ষা পরবর্তী জীবনে তাকে একজন নেত্রত্ব প্রদান কারী ব্যক্তি গঠনে সাহায্য করে এবং তিনি রাষ্টীয় জীবনে তা কাজে লাগান। দেশ সেবা করে থাকেন। এছাড়া পরিবারের বড় দের রাজনীতি নিয়ে আলোচনা, সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ঘটনা বিশ্লেষন ইত্যাদি আলোচনা থেকে আমরা বা ছোটরা বাস্তবিক রাজনৈতিক শিক্ষা পেয়ে থাকে।
৫। মনস্তাত্ত্বিক কাজঃ পরিবার মায়া মমতা, আদর স্নেহ ভালবাসা ইত্যাদি দিয়ে পরিবারের সদস্যদের মানসিক চাহিদা পূরণ করে ও ও শিশুর সহায়ক হিসাবে আজ করে জীবন গড়ে তোলে। নিজের সুখ, দুখ, আনন্দ, বেদনা, পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে ভাগাভাগি করে প্রশান্তি লাভ করা যায়। যেমন কোন বিষয়ে মন খারাপ হলে মা বাবা, ভাই বোনদের সাথে আলোচনা করলে মন ভাল হয়। এতে আমাদের দুঃশ্চিন্তার কারণ গুলো তারা সঠিক মতামত বুদ্ধি দিয়ে লাঘব করে দেন।
৬। বিনোদনমূলক কাজঃ পরিবারের সদস্যদের সাথে গল্প গুজব, খেলা ধূলা, হাসি তামাসা, গান বাজনা , টিভি দেখা আলোচনা, কোথাও বেড়াতে যাওয়া, নানা অনুষ্ঠান যেমন বিবাহ, জন্মদিন, ঈদ, পূজা, নববর্ষ, নবান্ন, জাতীয় উৎসব ইত্যাদি এক সাথে আনন্দের সাথে পালন কাজ গুলো পরিবার করে থাকে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

7 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 7 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 1978
...