"বিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন
শর্করা জাতীয় খাদ্যের উৎস ব্যাখ্যা কর?

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন

শর্করা

কার্বন, হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন এর সমন্বয়ে গঠিত যৌগকে কার্বহাইড্রেট বলে। কার্বহাইড্রেট জাতীয় উপাদানগুলোর মধ্যে নিম্নতর আনবিক গঠন বিশিষ্ট যৌগ গুলো মানুষের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার হয় যা শর্করা জাতীয় খাদ্য নামে পরিচিত ।
শর্করা বা কার্বহাইড্রেট বর্ণহীন, গন্ধহীন  কিছুতা মিষ্টি স্বাদযুক্ত ।

শর্করা কোষে শ্বসনিক প্রক্রিয়ায় তাপশক্তি উৎপন্ন করে যা আমাদের বেচে থাকা ও কর্মশক্তি যোগায়। তাই দেহে শর্করা একটি অপরিহার্য খাদ্য উপাদান।

শর্করার উৎসঃ কম বেশি প্রায় সকল খাদ্যেই শর্করা উপস্থিত। কিন্তু আমাদের শরীর যেসকল খাদ্য থেকে যথেষ্ট পরিমান শর্করা পায় তা মোটামুটি দুই প্রকার। যথা-

উদ্ভিজ্জ উৎসঃ
স্টার্চ রুপেঃ ধান, গম, যব, আলু ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমান শর্করা স্টার্চ রুপে থাকে। স্টার্চ হচ্ছে শর্করার লম্বা কার্বনশিকল বিশিষ্ট পলিমার চেইন।
গ্লূকোজঃ আপেল, গাজর, আঙ্গুর, কেজুর ইত্যাদিতে গ্লূকোজ বিদ্যমান।

ফ্রূকটোজঃ পেপে, কমলা, আম, কলা ইত্যাদিতে ফ্রূকটোজ বিদ্যমান।

সুক্রোজঃ আখের চিনি, গুড় সহ যেকোন মিষ্টিতে সুক্রোজ বিদ্যমান।
সেলুলোজঃ সেলুলোজ উদ্ভিদের গাঠনিক উপাদান। সেলুলোজ মানুষ সাধারণত হজম করতে পারে না কিন্তু নিম্নতর কিছু সেলুলোজ সিদ্ধ অবস্থায় মানুষ হজম করতে পারায় সকল প্রকার শাক যেমন লাল শাক, ডাটা শাক, কিছু সবজি ইত্যাদি থেকে সেলুলোজ জাতীয় শর্করা গ্রহন করে।
প্রাণিজ উৎসঃ দুধ তথা দুধের ল্যাক্টোজ হচ্ছে শর্করা। প্রাণিজ গরু ছাগল হাস মুরগীর যকৃত ও মাংসে গ্লাইকোজেন রুপে শর্করা বিদ্যমান।


এ সম্পর্কে আরও একটি প্রশ্ন

শর্করা বা কার্বহাইড্রেটের গুরুত্ব

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
6 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 6 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 6846
...