"সাধারণ" বিভাগে করেছেন

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
আজকাল অনলাইনে হারহামেশাই অনেক অফার দেখা যায়। 

এর মধ্যে কমন থাকে রেফার করে ইনকাম করুন, একাউন্ট খুলে টাকা নিন, রিচার্জ নিন ইত্যাদি।

আর আমাদের অঞ্চলে একটা কথা প্রচলিত আছে যে, "ফ্রি চিটি গুড় পেলেই গরুর মত খেতে লেগে পড়ে"

যাই হোক, অনলাইনে ইনকামের কথা শুনলেই যে কারোর মনের ভেতর একটা উষ্ণতা ছড়ায়, আগ্রহ বেড়ে যায়। মনযোগ মাছরাঙ্গার মত হয়ে যায়।

অনলাইনে একাউন্ট করেই ২০ টাকা ৫০ টাকা নিয়া নিন এটি আজকাল কম হয়ে গেছে। 

অনেকেই প্রুভ সহ প্রচার পোস্ট করে।

আসলে এগুলো একশ্রেণির মানুষ করে থাকে যারা নিজেদের প্রচার বা নতুন কোম্পানি দাড় করাতে চাই অথবা বিশেষ অর্থে প্রতারকগন করে।

সেটা আবার কি?

হুম, স্বাভাবিক প্রশ্ন। এইসকল অফারের অধিকাংশ ভুয়া হয়।

আবার কিছু নতুন কোম্পানি এই কাজ করে কিন্তু তারা নানা শর্ত জুড়ে দিয়াই তবে টাকা দেয়। যেমন পার্সোনাল ইনফো দাউ, বা সার্ভে ফর্ম পূরন কর বা কয়েকজন রেফার কর এমন শর্ত জুড়ে দেয়। তো কেউ কেউ এগুলো পূরন করে হয়ত সত্যিই টাকা পায় যা সে প্রুভ হিসাবে ব্যবহার করে।

তাহলে এতে ক্ষতি কি?

আপনি হয়ত নগদে ৫০ টাকা পেলেন, সামনে কোন ক্ষতি নাই। হতে পারে কোনদিনও ক্ষতি হবেনা বা হয়নি।

কিন্তু আসলে আপনি নিজের ক্ষতি করছেন।

বর্তমান জুগ তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। বলা হয়ে থাকে যে তথ্যই সম্পদ।

এক সময় ডেটার মূল্য এতই ছিল যে প্রবাদ বাক্য রয়ে গেছে "আদার ব্যাপারী হয়ে জাহাজের খবর" হাহাহাহা মানে একসময় ডেটার মূল্য ছিলনা (আর্থিক মূল্য বা কর্পোরেট বা সুবিধা মূল্য)। কিন্তু বর্তমানে ডেটারই মূল্য বেশি। আমরা এখন বুঝতে শিখেছি।

আগে জাহাজের খবর রাখা মূল্যহীন হলেও এখন সেই ডেটা রাখার জন্য তৈরি হয়েছে ডেটাবেজ। ডেটা প্রক্রিয়াকরন রীতিমত ডেটাসায়েন্স হয়ে উঠেছে।

সে যাই হোক। ২০ বা ৫০ টাকা রিচার্জ নিতে আপনি কি করছেন ভেবেছেন? একাউন্ট করে নিজের তথ্য দিচ্ছেন। আচ্ছা ঠিক আছে আপনি ভূয়া তথ্য দিচ্ছেন। কিন্তু রিজার্জ বা টাকা নিতে ফোন নাম্বারটাতো সঠিক দিচ্ছেন তাইনা? তা না হলে টাকা আসবে কিভাবে? 

কখনো ভেবেছেন কি, এ দুনিয়ায় ফ্রিতে কেউ কাউকে দিতে আসেনি। কেউ যদি ২০ টাকা করে দেয়, আর যদি ১ লাখ মানুষ একাউন্ট করে তবে খরচ কত? ২০ লাখ টাকা? এত টাকা দিলে কোম্পানি ফকির হয়ে যাবে। আসলে কোম্পানির টার্গেট এত নয়। তারা অফার দেবে এবং হাজার দশেক টাকা খরচ করবে। এই টাকা যারা পাবে তারা প্রুভ দেবে। এরপর প্রচুর মানুষ একাউন্ট করবে। কোম্পানি টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেবে। ততক্ষনে লাখ ইউজার একাউন্ট হয়ে গেছে হাহাহাহাহা। কম বেশি সামান্য হোক সমস্যা কি?

তো কোম্পানির এখন কাজ কি?

কাজ হচ্ছে তারা যে ফোন নাম্বার পেল সেগুলো তারা মার্কেটিংয়ে ব্যবহার করবে। অন্য কোম্পানির কাছে বিক্রি করতে পারে। এড কোম্পানিকে দিতে পারে। অথবা নিজেরাই ব্যবহার করতে পারে।

নাম্বার দিয়া আবার কি কাজ করবে?

প্রতিদিন নানা অফার এসএমএস পান? হ্যা পান। বিজ্ঞাপন দাতারা এগুলো করে। আপনি হয়ত অফার নেন না। কিন্তু ২০ টাকার জন্য যারা একাউন্ট করেছে তাদের অনেকেই অফার নেন। এখান থেকেই তাদের ব্যবসা হয়। গ্রামে হত বিভিন্ন কোম্পানির এদএমএস আসেনা, কিন্তু টাউন বা ঢাকাতে যারা থাকেন তারা নিশ্চয় জানেন যে শপিং মল থেকেও অফার আসে। তারা আপনার নাম্বার পেল কই? নিশ্চয় এবার বুঝেছেন।

আরেকটা বিষয় আছে তা হল এসব নাম্বারে টাকার একাউন্ট যেমন বিকাশ আছে কিনা, এগুলোও খুজে নেয়, সেই মোতাবেক অফার করে। প্রতারক চক্র আবার টাকা মারার ধান্দায় থাকে। কারন তারা আপনার ইনফো জানে। ঐযে একাউন্ট করেছেন।

আবার অনলাইন নানা সমস্যাতো আছেই। জানেনকি এসব নাম্বার দিয়া অনেকেই অনলাইনে নানা ফর্মে ব্যবহার করে ধান্দা দেয়। অথচ আপনি কিছুই জানেন না। সব সময় সবাই বিপদে পড়বে এটা একদমই ভূল। কিন্তু অনলাইন বিপদে যারা পড়ে, যেমন ফেসবুক আইডি হ্যাক। এসব ঝামেলা হয় আপনারই অসতর্কতার জন্য, নগদে ২০ টাকা সামলাতে না পেরে।

যাই হোক। যারা এসব অফার করে তারা দেওয়ার জন্য নয় বরং দ্বিগুন পাওয়ার জন্যই করে এটি বুঝবেন যেদিন সেদিন সতর্ক হতে পারবেন। শেষ করি এই কথা বলে,  আপনি ২০ হাজার টাকা স্যালারির চাকরী করেন ভাল। কিন্তু কতৃপক্ষ আপনাকে পকেট থেকে এ টাকা দেয়না। আপনাকে খাটিয়ে তারা ৫০ হাজার ইনকাম করে ২০ হাজার আপনাকে দেয়। হাহাহাহা সরকারী চাকরীও তাই, অফিসে বসে থাকেন আর কিছু লেখেন। কিন্তু সেই চেইনের প্রান্তিকে অর্থনীতি যুক্ত।
3 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 3 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 6871
...