"বাংলা দ্বিতীয় পত্র" বিভাগে করেছেন
অধ্যবসায় রচনা লিখে দিন

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন

অধ্যাবসায় রচনার উপসংহারঃ 

পারিবনা এ কথাটি বলিওনা আর,
একবার না পারিলে দেখ শতবার।
যে পথে কখনো বিচরন করনি সে পথ চিনে যেতে তো কষ্ট হবেই। ভূলও হতে পারে। কিন্তু বার বার গমনকৃত পথে একবারেই চিনে যাওয়া যায়। তেমনি প্রথম যা করবে তাতে অসফলতা আসতেই পারে। তাই বলে কি ফিরে আসবেন? ছেড়ে দেবেন সেই কাজ? কবির ভাষায়-
" কেন পান্থ ক্ষান্ত হও, হেরি দীর্ঘ পথ
উদ্যম বিহনে কার পুরে মনোরথ?"
তাই অধ্যবসায়ের মাধ্যমেই নিরলসভাবে চেষ্টা করতে হবে সফলতার জন্য। একবার দুবার না হলেও শত বারের চেষ্টায় তা সফল হবে। শেষবারের আগের সকল চেষ্টায় কৃত কাজ তো শেষবারে প্রয়োজন হয়না তাই যত চেষ্টা শ্রম ততই কম। জীবনে সফল হতে হলে তাই কোন কাজ অসম্ভব বলে ফেলে চলে আশা ঠিক নয়। তাহারা বহুবার চেষ্টার পর অসফল হয়ে ফিরে আসে ,যাহারা কেবল তা অবহেলা করেই চেষ্টা করেছিল কিন্তু অধ্যবসায় হচ্ছে সেই ইচ্ছা যা অনুপ্রেরণা দেয় যে, আমাকে পারতেই হবে। প্রবাদে বলা হয়ে থাকে যে,
 "মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পতন" 
অর্থাৎ মনযোগের সহিত সর্বোচ্চ ক্ষমতা প্রয়োগ করে বার বার চেষ্টাই অধ্যবসায়। এটি মানুষের মহৎ গুন। যাহার ভেতর অধ্যবসায় রয়েছে। সফলতা তাহার সঙ্গী হয়।
এ বিশ্বে নিজেকে তুলে ধরতে তাই এই গুনের কোন বিকল্প নাই। অধ্যাবসায়হীন ব্যক্তি, জাতি কখনো উন্নতি করতে পারেনা। বালির বাধের মতই সামান্য অর্জিত উন্নায়ন ভেসে যায়। আর তাই অধ্যবসায়ী হতে ছাত্রজীবনই শ্রেষ্ঠ সময়। অধবসায় বয়ে আনে একজন ছাত্রের বর্তমান,ভবিষ্যত সফলতা।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর
20 সেপ্টেম্বর 2019 "রসায়ন বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Nishat Islam Saji
6 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 6 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 2168
...