"অনির্বাচিত বিভাগ" বিভাগে করেছেন
কিভাবে দুটি মৌল যৌগ গঠন করে ব্যাখ্যা কর?

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
বন্ধন গঠন কৌশলঃ সাধারন ভাবে ধাতু অধাতুর মধ্যে রাসায়নিক বন্ধন গঠিত হয়। কারন এসব মৌলের পরমানুগুলো নিষ্ক্রিয় নয়। এরা সক্রিয়। নিষ্ক্রিয় গ্যাস হিলিয়াম, নিয়ন, আর্গন ইত্যাদি কেবল কোন বন্ধন গঠন করেনা। নিয়ন আর্গনের ইলেক্ট্রন বিন্যাসে শেষ কক্ষপথ ৮ টি ইলেক্ট্রনে পুর্ণ, ৮টি ইলেক্ট্রন থাকলে পরমানুটি আর ইলেক্ট্রন গ্রহন বা ত্যাগ করেনা। একে অষ্টক তত্ত্ব বলে। 

সক্রিয় পরমানুগুলোর এই অষ্টক পূর্ন থাকেনা বলে তারা ইলেক্ট্রন গ্রহন বা বর্জনের মাধ্যমে শেষ কক্ষপথে ৮টি ইলেক্ট্রন পূরন করে নিষ্ক্রিয় হতে চায়। আর এই প্রবনতার জন্যই রাসায়নিক বিক্রিয়া বা বন্ধন সৃষ্টি হয়।

সোডিয়াম ও ক্লোরিনের অষ্টক পূর্ণ নয় বলে এদের মধ্যে নিম্মোক্ত ভাবে আয়নিক বন্ধন গঠন সম্ভব।

সোডিয়াম ও ক্লোরিন পরমাণুর মাঝে যৌগ গঠন প্রক্রিয়াঃ-

সোডিয়াম পরমাণুঃ সোডিয়াম পরমানুতে ১১টি ইলেট্রন রয়েছে ৩টি কক্ষপথে। এর ইলেক্ট্রন বিন্যাস হচ্ছে ২,৮,১ এই বিন্যাস থেকে দেখা যায় যে সোডিয়াম পরমানু তার শেষ কক্ষপথের ১ টি ইলেকট্রন সহজে ত্যাগ করে সোডিয়াম পজেটিভ আয়নে পরিণত হয়। এবং এটি নিয়নের ইলেক্ট্রন বিন্যাস ২,৮ অর্জন করে। ফলে সোডিয়ামের অষ্টক পূর্ণ হয়।

ফলে সোডিয়াম আয়ন Na+ ধনাত্মক চার্জে পরিণত হয়।

অপরদিকে ক্লোরিন Cl এর ইলেক্ট্রন ১৭ টি ৩ সারিতে থাকে। এর ইলেক্ট্রন বিন্যাস হচ্ছে ২,৮,৭।  ক্লোরিনের পক্ষে তার সর্বশেষ কক্ষপথের ৭ টি ইলেক্ট্রন ত্যাগ করা সম্ভব হয়না। এর চেয়ে বরং একটি ইলেক্ট্রন গ্রহন করে ২,৮,৮ আর্গনের ইলেক্ট্রন বিন্যাস অর্জন সহজ হয়। ফলে এটি সোডিয়ামের ত্যাগ করা ইলেকট্রনটি গ্রহন করে তার অষ্টক ২,৮,৮ পূরন করে নেগেটিভ আয়ন Cl- এ পরিণত হয়। Cl- হচ্ছে ঋনাত্মক চার্জযুক্ত তাই এটি ধনাত্মক চার্জযুক্ত Na+ আয়নকে আকর্ষন করে। ফলে বিপরীত আয়নদ্বয় NaCl বন্ধন গঠন করে লবনে পরিণত হয়। 

এভাবে সোডিয়াম ক্লোরিনের মধ্যে বন্ধন গঠন করা সম্ভব।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

6 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 6 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 6585
...