"অনির্বাচিত বিভাগ" বিভাগে করেছেন
বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের কৃষি উৎপাদন তুলনামূলক বর্ণনা কর?,

2 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। এদেশের অর্থনীতি মূলত কৃষির উপর নির্ভরশীল। স্বাধীনতার পূর্বে, পশ্চিম পাকিস্থানের শাসন শোষন ও কৃষি বৈষম্যের জন্য এদেশের কৃষি ক্ষেত্রে খুব বেশি অগ্রগতি লাভ করেনি। স্বাধীনতার পর কয়েকটি মাত্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্সটিটিউট ভেটেরিনারী প্রতিষ্ঠান ছিল। মানুষের তেমন কোন প্রশিক্ষন ছিলনা। কিন্তু আজ আর সে অবস্থা নাই। এখন দেশে চারটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সহ বেশ কয়েকটি ভেটেরিনারী প্রতিষ্ঠান ও জেলা পর্যায়ের অধিদপতের শাখা ছড়িয়ে আছে। এখন বর্তমানে বাংলাদেশ কৃষিতে অনেক এগিয়ে গেছে। ধীরে ধীরে বাংলাদেশ উন্নত কৃষি যন্ত্রপাতি আমদানি ও ব্যবহারের মাধ্যমে  বহুগুনে কৃষি উৎপাদন বাড়িয়েছে। বলা যায় যে তাই বাংলাদেশ কিছু কিছু কৃষি পন্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ন অর্জন করেছে। কিন্তু তবুও ছোট একটি দেশ তার জনসংখ্যা বিশাল। দিনের পর দিন বাড়তি জনস্নগখ্যার জন্য কৃষি জমি কমে যাওয়ায় অল্প যায়গায় অধিক ফসল উৎপাদন ও সারাবছর চাষের জন্য উন্নত প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ এখনো অনেক পিছিয়ে আছে। সর্ব ক্ষেত্রে সেচ ব্যবস্থা এখনো উন্নত হয়নি। কৃষি যন্ত্রপাতী, জৈব সার সবুজ সার তৈরি ইত্যাদিতে বাংলাদেশ এখনো পিছিয়ে।

অন্যদিকে ভিয়েতনামের কৃষি অনেক উন্নত। তারা কয়েক বছরের মধ্যে কৃষি যন্ত্রপাতী উন্নায়ন ও নানা কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করে তা ব্যবহার করছে। এর ফলেই বর্তমানে ভিয়েতনাম চাল উৎপাদন ও রপ্তানিতে প্রধান দেশে পরিণত হয়েছে। ভিয়েতনাম আজ উন্নত ও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কম সময়ে অনেক বেশি কৃষি পন্য বা ফসল উৎপাদন করছে। যার সাথে বাংলাদেশের খুব কমই মিল রয়েছে।

ভিয়েতনামের সাথে বাংলাদেশের ধান উৎপাদনে বেশি মিল রয়েছে। ২৫ বছর আগে ভিয়েতনাম কৃষিতে অনগ্রসর ও দুর্বল ছিল। তারা আজ প্রায় সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে ছাড়িয়ে গেছে।

ভিয়েতনামের কৃষি সমবায় অত্যান্ত শক্তিশালী ও সৃজনশীল। সেখানে সকল কৃষক কোন না কোন সমবায়ের সাথে যুক্ত ছিল। এসকল সমবায় গুলো কৃষকদের নগদ অর্থসহ বীজ, সার, উন্নত ও নতুন নতুন প্রযুক্তি দিয়ে সাহায্য করত। এবং ফসল বিক্রিও করে দিত সঠিক মূল্যে ফলে কৃষকগন শোষনের শীকার হতনা বলে তারা আর্থিক লাভবান হয়ে সবসময় উন্নত প্রযুক্তি গ্রহনে আগ্রহী ছিল। এসকল কারনে ভিয়েতনামের কৃষি বাংলাদেশকে ছাড়িয়ে দ্রুত উন্নত হয়েছে।
0 টি ভোট
করেছেন
বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের কৃষির তুলনা:-

 বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম উভয় দেশই কৃষি উন্নয়ন ও গবেষণায় ভাল স্থান দখল করে আছে। ভিয়েতনামের অর্থনৈতিক উন্নয়নের পিছনে কৃষি সমাজ ও কৃষির অবদান অনেক। দুই দেশের কৃষিতে ধান উৎপাদন বেশি হয়। কিন্তু বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের কৃষির মধ্যে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে।

 যেমনঃ-

 ১. ২৫ বছর আগে ভিয়েতনামের কৃষি চিত্র ছিল অনেকটা না বলার মত কিন্তু দেশের কৃষি সমবায় সংগঠন গুলো। খুবই সৃজনশীল ও শক্তিশালী হওয়ার কারণে দেশের কৃষি চিত্র একেবারে পাল্টে যায়। সেই তুলনায় স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের কৃষিতে তেমন কোন উল্লেখযোগ্য উন্নতি বা পরিবর্তন সাধিত হয়নি। কারণ কৃষি সমবায়। সংগঠন গুলো কেমন শক্তিশালী ও সংগঠিত ছিল না। 

 ২. বাংলাদেশে কৃষি সমবায় সংগঠন গুলো ভিয়েতনামের সংগঠনগুলোর মত এত তৎপর না। যদিও কিছু কৃষি। সমবায় মাঠপর্যায়ে কাজ করছে কিন্তু তা চোখে পড়ার মতো না। অন্যদিকে ভিয়েতনামের সংগঠনগুলো কৃষি। সম্প্রসারণে প্রচুর টাকা ব্যয় করে এবং কৃষি নীতি ও কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে কৃষকদের ধারণা প্রদান করে। যার ফলে ভিয়েতনাম বিশ্বের অন্যতম প্রধান চাল রপ্তানিকারক দেশ পরিচিতি লাভ করেছে।।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
14 জানুয়ারি "রসায়ন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Naeem
10 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 10 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 3158
...