0 টি ভোট
"স্বপনের ব্যাখ্যা" বিভাগে করেছেন (11 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (445 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটঃঃ-

 বাংলাদেশ একটি স্বল্পোন্নত দেশ। বর্তমান এ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণ ঘটেছে। জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন নীতি সংক্রান্ত কমিটি সিডিপি গত ১৫ মার্চ এলডিসি থেকে বাংলাদেশের উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়। এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের জন্য মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ সূচক এবং অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা জীবন জীবিকার মান সূচক এ তিনটি সূচকের যে কোন দুটি অর্জনের শর্ত থাকলেও বাংলাদেশ তিনটি সূচকেই  উত্তির্ন  হয়েছে।

 জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাউন্সিলের মানদন্ড অনুযায়ী একটি দেশের মাথাপিছু আয়  কমপক্ষে ১২৩০ ডলার হতে হবে। বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়  এর চেয়ে বেশি ১৬১০ মার্কিন ডলার হয়েছে। মানবসম্পদ সূচক ৬৬ প্রয়োজন হলেও বাংলাদেশ তা ৭২ দমমিক ৯ হয়েছে। অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচক হতে হবে ৩২ ভাগ কিন্তু বাংলাদেশের রয়েছে ২৪ দশমিক ৮ ভাগ। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে আজকের এই উত্তরণ - যেখানে রয়েছে এক কঠিন পথ পাড়ি দেওয়ার ইতিহাস।  সরকারের উন্নয়ন কল্প ২০২১ বাস্তবায়নের এটি একটি বড় অর্জন। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের জন্য। অগ্রগতিশীল উন্নয়ন কৌশল গ্রহণের ফলে সামগ্রিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, কাঠামোগত রূপান্তর ও উল্লেখযোগ্য সামাজিক অগ্রগতি বাংলাদেশকে দ্রুত উন্নয়ন হয়েছে।

 বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে  সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি উঠে আসে বাংলাদেশ জন্মের ৫০ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে। বাংলাদেশ দ্রুতগতিসম্পন্ন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মতো সফলতা দেখাতে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্ব, দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা, এসডিজি অর্জন, এসডিজি বাস্তবায়নসহ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ সমতা, কৃষি, দারিদ্র্যসীমা হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, রপ্তানীমূখী শিল্পায়ন, ১০০ টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, পোশাক শিল্প, ঔষধ শিল্প, রপ্তানী আয় বৃদ্ধিসহ নানা অর্থনৈতিক সূচক। পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ দেশের মেগা প্রকল্পসমূহ। এতে প্রদর্শন করা হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদাত্ত আহ্বান, ‘আসুন দলমত নির্বিশেষে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত, সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলি।’ 


বাংলা দেশের অর্জন ঃঃ  বাাংলাদেশ বিশ্ব্ মানচিত্রে ক্ষুদ্র আয়তনের একটি দেশ হওয়া সত্বেও বাংলাদেশ ইতোমধ্যে সারা বিশ্বের নিকট উন্নয়নের মডেলে পরিণত হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের নিবিড় সমন্বিত ব্যবস্থাপনা, ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবহার এবং দারিদ্র দূরীকরণে তার ভূমিকা, জনবহুল দেশে নির্বাচন পরিচালনায় স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুতা আনয়ন, বৃক্ষরোপণ, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সূচকের ইতিবাচক পরিবর্তন প্রভৃতি ক্ষেত্রে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে।৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে জন্ম নেওয়া এই বাংলাদেশকে আজকের অবস্থানে আসতে অতিক্রম করতে হয়েছে হাজারো প্রতিবন্ধকতা। যুদ্ধ বিধ্বস্ত, প্রায় সর্বক্ষেত্রে অবকাঠামোবিহীন সেদিনের সেই সদ্যজাত জাতির ৪৩ বছরের অর্জনের পরিসংখ্যানও নিতান্ত অপ্রতুল নয়। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার ৮টি লক্ষ্যের মধ্যে শিক্ষা, শিশুমৃত্যুহার কমানো এবং দারিদ্র হ্রাসকরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য উন্নতি প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছে। নোবেল বিজয়ী ভারতীয় অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের করা মন্তব্য এক্ষেত্রে প্রণিধানযোগ্য। তাঁর মতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিশ্বকে চমকে দেবার মতো সাফল্য আছে বাংলাদেশের। বিশেষত শিক্ষা সুবিধা, নারীর ক্ষমতায়ন, মাতৃ ও শিশু মৃত্যুহার ও জন্মহার কমানো, গরিব মানুষের জন্য শৌচাগার ও স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান এবং শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম অন্যতম।
করেছেন (3.6k পয়েন্ট)
3, 4 জায়গা থেকে কপি করা

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
06 অক্টোবর 2019 "বাংলাদেশ বিষয়" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Waruf (3.6k পয়েন্ট)
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
19 নভেম্বর 2020 "অর্থনীতি বই" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Naeem (542 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
20 জানুয়ারি "আন্তর্জাতিক বিষয়" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রিপন (3.1k পয়েন্ট)
4 Online Users
0 Member 4 Guest
Today Visits : 2357
Yesterday Visits : 8512
...