"নিত্য সমস্যাবলী" বিভাগে করেছেন
খুব ঝামেলায় আছি এই বিষয়টি নিয়ে।

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন
হাতে লেখা সুন্দর করা পুরানা উপদেশ হচ্ছে বেশি বেশি লেখা। যতই লিখিবে ততই সুন্দর হবে। তবে প্রাথমিক ভাবে কিছু পদ্ধতি মেনে চললে দ্রুত হাতের লেখা সুন্দর হতে পারে। সেগুলো হচ্ছে-

১। প্রথমেই এক লাইন বার বার নিচে নিচে এমন ভাবে লেখা যে উপরের শব্দের নিচে ঠিক সেই শব্দটি পড়ে। যেমন 

বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ।

বাংলাদেশ একটি স্বাধিন দেশ।

 এভাবে লিখলে নিচের শব্দটি লেখার সময় উপরের শব্দে চোখ পড়ে বলে আরও সুন্দর করার মনমানসিকতা অজান্তেই হাতে চলে যায়। এবং বার বার একই লাইন আরও বেশি সুন্দর করার ইচ্ছা জাগে। প্রাক্টিস হয়।

২। প্রথম কয়েকদিন দাগ কাটা খাতাতেই প্রাক্টিস করুন। তিন লাইন পর পর এক লাইন গ্যাপ দিয়া লিখুন।

৩। মাত্রাযুক্ত অক্ষরের সকল মাত্রা একই রুপে সমান ভাবে দিরে চেষ্টা করুন।

৪। প্রতি অক্ষর সমান উচ্চতাযুক্ত করতে চেষ্টা করুন। যুক্ত বর্ণ হলে এমন ছোট করুন যে সবকটি মিলে একটি এক অক্ষরের উচ্চতার সমান হয়।

৫। লাইন সোজা রাখুন। 

৬। সামান্য ডান দিকে বাকা ও একটু লম্বা অক্ষর করে লিখতে চেষ্টা করুন এতে লেখা সুন্দর দেখায় বেশি।

৭। অক্ষর ভুল হলে মাত্র একটি দাগে কাটুন, দুটি শব্দের মাঝে যথেষ্ঠ গ্যাপ রাখুন তাহলে লেখা ঝকজগকে পরিস্কার ও সুন্দর লাগবে।

৮। হাতের লেখা স্টাইল করার জন্য বিক্রিত করে অক্ষর লেখা পরিহার করুন। 

৯। সর্বপরি ভেবে গল্প লেখার চেয়ে মুখস্থ কোন কবিতা বা গান লিখুন তাহলে লেখা দ্রুত হবে। ভেবে গল্প লিখলে রচনা লেখা হবে ঠিকই কিন্তু সুন্দর হাতের লেখার অভ্যাস হবেনা।

১০। ২০ মিনিট বসে লিখতে সবারই বিরক্ত লাগে। এই বিরক্তকে জয় করে প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০ মিনিট বা এক ঘন্টা লিখুন। বিরক্ত আলসেমি সকল প্রাক্টিস সর্বনাশের মূল। 
করেছেন
অনেকে বলে নিউসপেপারে অক্ষরের ওপর পেন্সিল দিয়ে হাত বুলিয়ে অক্ষর সুন্দর করার প্রাক্টিস করতে।এটা কি খুব কার্যকরী পদ্ধতি?
করেছেন
না এটা কোন পদ্ধতিই না। বরং এটি মানুষের হাতের লেখার সৌন্দর্যতা ও গতি নষ্ট করে দেয়। 

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
0 টি উত্তর
1 উত্তর
1 উত্তর
8 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 8 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 5509
...