"বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি" বিভাগে করেছেন
রাউটার ও পকেট রাউটার কিভাবে ব্যবহার করতে হয়?

1 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন

রাউটারঃ রুট(route) বা রাস্তা ইংলিশে অনেকেই রাউট বা গন্তব্য পথ বলে থাকেন।  এখান থেকে মূলত রাউটার এসেছে। অর্থাৎ রাউটার হচ্ছে গন্তব্য পথ সৃষ্টি কারী। 

তথ্যপ্রযুক্তিতে রাউটার হচ্ছে এমন একটি ডিভাইস যা একটি গেট বা পথকে অনেক গুলো পথ সৃষ্টি করে ভিন্ন ভিন্ন ভাবে অনেকগুলো কম্পিউটার বা নেটওয়ার্ক এক্সেস যোগ্য ডিভাইসকে যুক্ত করে। অর্থাৎ অনেকগুলো কম্পিউটারকে এক সাথে যুক্ত করা বা নেটওয়ার্কে যুক্ত করার জন্য ডাটা এক্সেস পথ সৃষ্টিকারী ডিভাইসকেই রাউটার বলে। 

সাধারন ভাবে অনেক প্রকারের রাউটার আছে। তবে পাবলিক ব্যবহারের জন্য রাউটার ৩ ধরনের। 

১। লোকাল নেটওয়ার্ক সৃষ্টিকারী রাউটার। এটি সাধারনত একটু বড় এবং কেবল সংযোগের মাধ্যমে কম্পিউটারগুলোকে যুক্ত করা হয়। এ ধরনের রাউটার আগে বড় অফিসে বেশি ব্যবহার হত। বর্তমানেও এর ব্যবহার আছে তবে এখন হাইব্রিড বেশি ব্যবহার হয়।

২। পাবলিক বা ফ্যামিলি রাউটার। এটি মূলত ছোট এবং স্বল্প পরিসরে ব্যবহার যোগ্য রাউটার। এটি হাইব্রিড অর্থাৎ এতে কেবল ও ওয়ারলেস কানেক্টশনের ব্যবস্থা আছে। মূলত ওয়্যারলেস এর মাধ্যে ডিভাইস গুলোকে যুক্ত করতে এই রাউটারে ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার হয় যা ছোট একটি এরিয়াকে হটস্পট এ পরিনত করে। এই রাউটারের সুবিধা হচ্ছে পোর্টেবল ডিভাইস বা বহনযোগ্য ডিভাইস যেমন মোবাইল ফোনকে হটস্পট জোনের ভেতর চলাফেরা করতে করতেও ইন্টারনেটে যুক্ত হয়ে  ব্যবহার করা যায়। 

৩। পকেট রাউটারঃঃ  এটি ছোট খাট মোবাইল ফোনের মত সাইজের পকেটে বহনযোগ্য একটি রাউটার। এটি শুধু মাত্র ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে হহটস্পট করে ।  এই রাউটার খুব বেশি শক্তিশালী নয়।  এবং এই রাউটারে ৮-১০ জনের বেশি একত্রে যুক্ত হওয়া যায়না।

এই রাউটারের সুবিধা হচ্ছে ব্যক্তিগত পর্যায়ে পকেটে নিয়া যেখানে সেখানে ব্যবহার করা যায়।

রাউটার যেভাবে কাজ করেঃঃ

১ ও ২ নাম্বার এর ক্ষেত্রেঃ এই রাউটার গুলো সাধারনত কম্পিউটার ডিভাইস গুলোকে ইন্টারনেটে যুক্ত করতে একটি ইন্টারনেট উৎস পথ বা ব্রডব্যান্ড কেবল ব্যবহার হয়। অর্থাৎ প্রথমে আপনাকে ইন্টারনেট প্রভাইডার বা isp এর কাছ থেকে ব্রডব্যান্ড ইইন্টারনেট সংযোগ নিতে হবে। এখান থেকে একটি কেবল আপনার মূল রাউটারে দিতে হবে। তখন রাউটার মুলত এই একটি কেবলের ইন্টারনেট কে রাউটারে যুক্ত প্রতিটি কম্পিউটারের মধ্যে পৃথক ডাটা এক্সেস পথ সৃষ্টি করে সংযোগ প্রদান করবে। এভাবে একটি isp লাইনে বহু ডিভাইস ব্যবহার করা হয়। 

এখানে ফ্যামিলি ব্যবহারের রাউটার গুলোতে ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক থাকায় তা যেহেতু হটস্পট জোন সৃষ্টি করে তাই ব্যক্তি চাইলেই ওয়াইফাই এর মাধ্যমে মোবাইল, ল্যাপটপ বা পিসি কে যুক্ত করতে পারে।

বাস্তবে আমরা এখন বহুল পরিচিত শব্দ ওয়াইফাই বলতে সংযোগ নেওয়া বলতে এটিকে বুঝি ।  তবে অনেকে মনে করেন ওয়াইফাই কানেকশন প্রোভাইডার রা দিয়া যায়। অনেকে মনে করেন রাউটার হচ্ছে ওয়াইফাই।  এটি কিনলে আর টাকা লাগেনা। এসব ধারনা ভুল তা নিশ্চয় বুঝতে পারছেন। আরও একটু ক্লিয়ার করি। 

ওয়াইফাই মুলত এক প্রকার ওয়ারলেস ফ্রিকোয়েন্সী তরঙ্গ যা ডাটা বহন করে ও ডিভাইসকে নেটওয়ার্কএ যুক্ত করে। এটি ইন্টারনেট নয়। ওয়ারলেস রাউটার অন করলে এই নেটওয়ার্ক সৃষ্টি হয়। কিন্তু ইন্টারনেট পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই isp এর কাছ থেকে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ নিতে হবে। আর এজন্য isp এর প্রাইস অনুযায়ী মাসে মাসে টাকা বিল হিসাবে দিতে হবে।
আর রাউটার ডিভাইস বা ওয়াইফাইটি আপনাকে দোকান থেকে কিনে নিয়া আসতে হবে।

৩ নাম্বার বা পকেট রাউটারঃ পকেট রাউটারের ইন্টারনেট উৎস মূলত মোবাইল সিম কোম্পানি। অর্থাৎ কোন একটি সিমে আপনাকে mb package কিনতে হবে যার দাম মোবাইল ইন্টারনেট দামের সমান।  এরপর সিমটি এই রাউটারে ভরে অন করলে ছোট একটি এরিয়া হটস্পট জোন সৃষ্টি হয়। এবং আপনি মোবাইল বা পিসি এই রাউটারে যুক্ত করে একটি সিমের ইন্টারনেট ৮ টি ডিভাইসে একসাথে ব্যবহার করতে পারেন।

আমাদের দেশে ঘরে দুর্বল মোবাইল নেটওয়ার্ক এর জন্য বাইরে একটু উচুতে পকেট রাউটার রেখে ঘরে বসে ফোনে ইন্টারনেট চালাতে এই ধরনের রাউটার বেশ ব্যবহার হচ্ছে। 

** উল্লেখ্য যে বর্তমান ৪জি সাপোর্টের ফ্যামিলি রাউটার পাওয়া যায় যাতে সিম দিয়া ব্রডব্যান্ড কানেকশন ছাড়াই ইন্টারনেট চালানো যায় । বাস ট্রেনে এগুলোর ব্যবহার আছে। 
করেছেন
ধন্যবাদ সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে বলার জন্য।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
17 এপ্রিল "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন mitu
9 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 9 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 5549
...