এসাইনমেন্ট এর কভার পেজ ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

সকল এসাইনমেন্ট এর উত্তর এখানে দেওয়া হবে, সাথে থাকুন

0 টি ভোট
"সাইকিয়াট্রিক পরামর্শ" বিভাগে করেছেন (15 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (602 পয়েন্ট)

পড়াশুনার বিভিন্ন স্তরঃ ছাত্রজীবন তরুন বয়সের একটি গুরুত্বপূর্ণ  স্তর। নিন্ম মাধ্যমিক বা মাধ্যমিক বা উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপাঠ শেষ করে যখন সবাই গ্রাজুয়েশন লেভেলে পড়তে চান তখন তার পরিবেশ হঠাৎ করে পরিবর্তন হয়ে যায়। সাধারণ পরিচিত কলেজ জীবন ছেড়ে ভার্সিটি জীবনে প্রবেশ করতে হয়। এ সময় অনেকেই মানসিক ভাবে থাকে উত্তেজিত। নতুন জায়গা কেমন হবে? কেমন হবে সেখানকার মানুষ গুলো ইত্যাদি মনের মধ্যে বাসা বাধে।  বিশেষ করে আমাদের দেশের ভার্সিটি জীবনে প্রথম দিন বা প্রথম কয়েক দিনের জন্য একটা ঐতিহ্য আছে তা হচ্চে র‍্যাগিং। র‍্যাগিং শব্দটি অনেকেই নেতিবাচক হিসাবে দেখেন। কিন্তু ছাত্র জীবনে এটির মজা সকলেই নিতে চাই। তবে মন মানসিকতার দিক দিয়া সবাই এটি গ্রহন করতে পারেনা। তাই এর কিছু খারাপ নজির শুনতে পাওয়া যায়। তাই নতুন ভার্সিটি জীবনে অনেকেই থাকেন সঙ্কায় যে সে কিভাবে এই নতুন পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারবে। পারবে এসব ভয়কে জয় করে উপভোগে পরিণত করতে।

মানসিক প্রস্তুতিঃ নতুন পরিবেশে কিভাবে নিজেদের মানিয়ে নিতে হবে এই পরামর্শ হয়ত অনেকেই দিতে পারেন আবার অনেকেই বলে থাকবেন যে এটি মূলত উপস্থিত বুদ্ধি দিয়াই মোকাবেলা করতে হয়। আসলে এক একজন মানুষের মন মানসিকতা ভিন্ন ভিন্ন তাই। কখন কোথাই কি হতে পারে তা সঠিক ভাবে আগে থেকে কাঠামোবদ্ধ করে বলা সম্ভব নয়। তবুও মনে সাহস সঞ্চার ও সম্ভাব্য নিজের মাথাকে সর্বোচ্চ প্রয়োগ করতে আগে থেকেই কিছুতা সাম্যক ধারণা থাকলে বাস্তব পরিবেশ মানিয়ে নেয়া সহজ হয়। তাই এখানে কিছু বিষয় উল্লেখ করা হলঃ-

পূর্ব প্রস্তুতিঃ সবার আগে ভাবুন আপনি নিজেই কোন ধরনের মন মানসিকতার ব্যক্তি? আপনি কি ওদের মত দুষ্টামী পছন্দ করেন নাকি ওদের মত পছন্দ করেননা? আপনি কি শুধু মাত্র পরিচিত বন্ধু মহলে আড্ডা দিতে পারেন নাকি একজন অপরিচিত মানুষকেও নিজের দিকে আকৃষ্ট করে গল্প জমাতে পারেন? হিসাব করে দেখুন আপনি কতটুকু অন্যের সাথে মিশতে পারেন? আপনি কোন ধরনের পোশাক পরিধান করতে পছন্দ করেন? আপনি কতটুকু ছেলেমানুষী আচরণ করেন আর কতটুকু বাস্তব জীবনের মত ফর্মাল আচরণ করেন?

বের হওয়ার পূর্বেঃ আপনি অযথা চিন্তা না করে নিজেকে কনফিডেন্ট রাখুন। মনকে ফ্রি করে দিন। এটা মনে রাখতে হবে যে, আপনি যত ভয় পাবেন ততই বন্ধুরা আপনাকে ভয় দেবে? ভয় দেয়াটা মজার হিসাবে দেখবে তারা। কিন্তু আপনি যদি এতে প্রতিক্রিয়া না করেন তবে তারা শুধু শুধু ভয় দিতে যাবেনা। যে ভয়ে তারা মজা নিত পারবেনা সে ভয় দিয়া কি লাভ হবে তা আপনি নিজেই কল্পণা করুন।

পোষাক একটি গুরত্বপূর্ণ ব্যাপার। ভার্সিটে যাওয়ার প্রথম কয়েক দিন পোষাকের প্রতি অতিরিক্ত নজর দিতে হবে। এখানে কোন ক্রমেই বলা হচ্ছে না যে, আপনি দামী দামী পোষাক পরিধান করবেন। এখানে বিবেচ্য বিষয় হচ্ছে আপনার পোষাকটি যেন ভার্সিটির জন্য ফর্মাল হয়। এমন পোষাক নির্বাচ করা যাবেনা যা দেখে মনে হয় আপনি ছোট একটা বাচ্চা মানুষ। পোষাক দেখে কেউ যেন না ভাবতে পারে আপনি মজার মানুষ বা জোকার টাইপের। যেমন লাল নীল, সাদা মিশ্র কালারের পোষাক নির্বাচন করা ঠিক নয়। এক্ষেত্রে এক কালারের পোষাক তার সাথে ম্যাচিং প্যান্ট ও সু হলে ভাল হয়।

হাটার ধরনঃ আমি যদি বলি আপনি হাটতে পারেন না। আপনি হয়ত আমার উপর রেগে যাবেন। বলে দেবেন অপমান করছিস? আমি দ্রুত ও অনেক হাটতে পারি। আসলে আমি তা বলিনি। এখানে হাটতে পারা হচ্ছে সুন্দর চিত্তে সোজা ভাবে হাটা। যেখানে হেলে দুলে হাটা চলবেনা। হাটার সময় যেন পা না বাকে সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। হাটার সময় পথ যেন সোজা থাকে এদিক ওদিক না হয় তা খেয়াল রাখতে হবে। বুক মাথা নিক সোজা হয়ে হাটতে হবে।  এদিক ওদিক তাকানোর সময় পুরা বডি না ঘুরিয়ে মাথা সামান্য ঝুকে ঘুরিয়ে অর্ধেক দেখা উচিত এতে আপনার ভেতর একটা ভাব ফুটে উঠবে যা দেখে মনে হবে আপনি অভিজাত।

এভাবেই নিজের স্টাইল ঠিকঠাক করতে পারলে অধিকাংশ ব্যক্তি বর্গ বা মানুষ কেউ মজা নেবার সাহস করবেনা, বরং তারা বলবে ছেলেটা কি সুন্দর স্মার্ট ও শক্তিশালী। তারা মজা নেবার কথা ভাবার চেয়ে বরং এটাই ভাববে আমাকেও এমন হতে হবে। আমরা যেমন সিনেমা দেখার সময় নায়ককে নিজের কল্পনায় নিয়া নেই তেমনি।

ক্যাম্পাসে ঘটনার মুখোমুখিঃ পূর্ব প্রস্তুতি ঘটনা অনেক কমিয়ে দেবে। তবুও ক্যাম্পাসে কিছু সময় র‍্যাগিং এর শিকার হতে হয়। বোখাটেরা মজা নিতে এটা ওটা করতে বলে। কিছু কিনে দিতে বলতে পারে বা সরাসরি অনেকেই টাকা চায়। এছাড়া ক্যান্টিন ফি, গ্রুপে যোগদান, রাজনৈতিক গ্রুপিং ফান্ড এ টাকা চাইতে পারে।

যা যা করতে পারেনঃ আপনার চলার প্রকৃতি ভাব ভঙ্গিই ওদের সাহায্য করবে তারা কি আচরণ করতে তা ঠিক করতে তাই নিজের চলার প্রতি খেয়াল রাখুন। এর পরেও যদি এমন হয় যে আপনি যাচ্ছেন। কয়েকজন আপনাকে ডেকে কথা বলতে বলতে বিভিন্ন অযুহাতে টাকা চাইল তখন আপনি মূলত এগুলো করতে চেষ্টা করুন।

আপনি যাচ্ছেন। তারা ডাকল। তখন আপনি বিষয়টা খেয়াল না করার ভান করে অন্য দিকে মনযোগ দিবেন। তারা যদি এমন সামনে পড়ে যে এভোয়েড করতে পারছেন না। তখন বলবেন ক্লাস আছে বা স্যারের কাছে কিছু দরকারী বিষয়ে কথা বলতে যাচ্ছেন। দেরি হয়ে যাচ্ছে। পরে কথা হবে। এই বলে এড়িয়ে যেতে চেষ্টা করুন। যদি তারা সামনে দাঁড়িয়ে যায় তবে। ভয় না পেয়ে বুক ফুলিয়ে সোজা হয়ে দাড়ান তারপর সাভাবিক ভাবে ভদ্রতার সহিত প্রশ্ন করুন যে আপনারা কারা? ক্লাসে তো দেখিনি যে আমার ক্লাসমেট হবেন। তখন তারা যদি ভদ্রতার সাথে পরিচয় দেয় তবে তাদের সাথে মিট করুন হাতে হাত মেলাতে হাত এগিয়ে দিতে পারেন কিন্তু এই কাজ গুলো খুব সংক্ষিপ্ত করতে হবে। বেশি সময় নেয়া যাবেনা। এমন ভাব দেখাবেন যে আপনি অনেক ব্যস্ত আছেন। এরপর যদি তারা সরাসরি টাকা চাই তবে ভদ্রতার সাথে বলুন কেন কি হয়েছে? বোখাটেরা হয়ত এর উত্তর দেবেনা কিন্তু তারা যা বলবে তার উপর ডিফেন্ড করে আপনাকে কথা বলতে হবে। এই কথা গুলো বলতে চেষ্টা করুন যে আপনার পড়াশুনার খরচ বহন করতে পারেনা আমার পরিবার। নিজেই টিউশন করতে হয়। আমি টাকা দেবো কোথা থেকে? তবে এ কথা অবশ্যই নিজের স্টাইলের উপর ভিক্তি করেই বলতে হবে। দেখা গেল আপনি এমন স্টাইল বা দামী পোষাক পরেছেন যা দেখে আপনাকে অতি ধনীর ছেলে মনে হচ্ছে , তখন এই কথা বলা যাবেনা। তখন এভাবে বলুন কিসে লাগবে ? প্রধান কে? কত টাকা করে ধরা হচ্ছে? এসব বলার পর ধীরে ধীরে বলবেন যে, এত টাকা তো কাছে নাই। আমিতো জানতাম না যে কোন অনুষ্ঠান বা কিছুর জন্য চাদা নেওয়া হচ্ছে। অন্য দিন দেব। এখন ক্লাসের সময় হয়ে গেছে। পরে গল্প করা যাবে বলে এভোয়েড করুন।

মূলত এভাবেই আপনি পারেন এই সমস্যা কাটাতে। তবে পুর্ব প্রস্তুতিই আসল ব্যাপার যে কেউ আপনাকে এমন র‍্যাগিং করবে কিনা। তাই নিজেকে ফর্মাল করুন। এমন অভিব্যক্তি প্রকাশ করুন যে আপনি শূধু একজন ছাত্র নন। আপনিও বড় কোন সংগঠনের লিডার বা আপনিও কোন গ্রুপের নেত্রত্ব দেন। এমন অভিব্যক্তি আপনাকে তাদের উপরে তুলে ধরবে।


0 টি ভোট
করেছেন (561 পয়েন্ট)

আমার কাছে কেউ টাকা চাইলে আমি বলি " ভাইয়া আগে একটি টাকার গাছ বানিয়ে নেই তারপর নাহয় টাকা দিবো, আমার নিজেরি নাই,আপনাকে দিবো কোথায় থেকে"। :-)

আপনি তাকে ব্যঙ্গ করে কিছু না বলেই উত্তম। আপনি বরং তাকে আপনার আর্থিক সমস্যার কথা বলুন এবং বোঝানোর চেষ্টা করুন। আশা করি কাজ হয়ে যাবে। তারা তবুও জোর করলে প্রথমবার টাকা দিন এবং প্রশাসক অথবা আইনের লোককে জানান।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
–1 টি ভোট
1 উত্তর

9 Online Users
0 Member 9 Guest
Today Visits : 7588
Yesterday Visits : 5791

বয়স গণনা করুন





     বয়স : 0 বছর     
            0 মাস
            1 দিন

প্রয়োজনীয় ক্যালকুলেটর ও কনভার্টার পেজ পেতে এখানে ক্লিক করুন

        

BMI Calculator

                 

Height: (in cm)
Weight: (in kg)

        
...