0 টি ভোট
"বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি" বিভাগে করেছেন (349 পয়েন্ট)
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন
সিসি বা cc কাকে বলে?

মটর সাইকেলে cc কি?

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (3.6k পয়েন্ট)
সি সি বা c c: গাণিতিক দিক দিয়া এটি cubic centimeter বা ঘন সেন্টিমিটার বোঝায়।

অর্থাৎ দৈর্ঘ্য প্রস্থ, উচ্চতা বিশিষ্ট ক্ষেত্রের আয়তন বোঝাতে ও নির্ণয়ে ঘন সেন্টিমিটার ব্যবহার হয়।

মটর সাইকেলের সি সিঃ আজকাল মটর সাইকেল থাকাটা একটা ফ্যাশন, আভিজাত্য আবশ্যক মনে করেন অনেকেই। তাই বাইক কিনতে মোটামুটি আলোচনা আছেই।

আমরা প্রায়ই শুনি উমুক ১২০সিসি বাইক কিনেছে, আরেকজন ১০০সিসি তো আরেকজন ১৪০সিসিও বলতে ছাড়েন না। 

যত বেশি সিসি তত বেশি ভাল বা ক্ষমতার গাড়ি বলে এটি আলোচনাও মর্যাদার। 

কিন্তু আসলে এই সিসি যে কি তা সে জানে বলে মনে হয়না। কারও একজন বাইক নাই তবুও পরামর্শ কালে বেশি সিসি শুনলেই সে অবাক ও উত্তেজনা বোধ করে। যদিও সে জানেইনা যে সিসি কি।

সিসি আসলে পাওয়ারফুল কিছুর ধারনা দেয় যেজন্য আভিজাত্য ভাবে বলতে আমরা পছন্দ করি।

তবে কেউ জানেনা আমি তা বলব না, অনেকেই জানেন।

সিসি মূলত বাইকের ইঞ্জিনে যে সিলিন্ডার আছে। সেই সিলিন্ডারের প্রসারিত অবস্থায় মোট আয়তন। 

আসলে সিলিন্ডারের ভেতর উঠানামাযোগ্য একটি পিস্টন রয়েছে। এই পিস্টনটি নিচ থেকে উপরে ওঠার সময় সিলিন্ডারে ফাকা সৃষ্টি হয়, এই ফাকাতে তেল ও বাতাসের মিশ্রন প্রবেশ করে।

তো একটি সিলিন্ডারে যতটুকু তেল ও বাতাসের মিশ্রন প্রবেশ করতে পারে তার আয়তনই হচ্ছে সিসি। যেহেতু সিলিন্ডারের ফাকা সকল স্থান তেল বাতাসের মিশ্রনে পূর্ণ হয়, তাই সাধারণ বলা হয় সিলিন্ডারের ফাকা স্থানের আয়তন।

তবে একটি সিলিন্ডার ১২০ সিসি যায়গা নাও নিতে পারে। বাইকে যে ১২০ সিসি শুনি তা ঐ বাইকের ইঞ্জিনে মোট সিলিন্ডারের সবগুলো মিলে যে আয়তন দেয় তাকেই বোঝায়।

ধরুন একটি বাইক ১২০ সিসির, দুই সিলিন্ডার। তাহলে একটি সিলিন্ডারে ৬০ সিসি তেল গ্যাসের মিশ্রন নিতে পারে।

এখানে আংশিক একটি কথা সত্য যে, যত বেশি সিসি হবে ইঞ্জিন তত পাওয়ারফুল হবে। তবে এটি পুরাপুরি সত্য নয়।

কারন যখন সিলিন্ডারে তেল বাতাসের মিশ্রন প্রবেশ করে তারপর সেই তেল বাতাসের মিশ্রনকে পিস্টন চাপ দিয়া সংকুচিত করে।

যত বেশি সংকোচন হবে ইঞ্জিন তত বেশি শক্তি নিতে পারে।

এখানেও আরো বিষয় আছে শুধু বেশি সংকোচন হলেই হবেনা। 

সর্বোচ্চ সংকোচনে পৌছার সাথে সাথে স্ফার্গ করাতে হবে তাহলে ইঞ্জিন বেশি শক্তি পাবে।

ধরুন সর্বোচ্চ সংকোচনের সাথে সাথে স্ফার্গ হলনা, তাহলে এর পরেই কিন্তু প্রসারন শুরু হবে। প্রসারন শুরু হবার পর স্ফার্গ হলে বেশি শক্তি পাবেনা।

একটি বাস্তব উদাহরন খেয়াল করুন। আপনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছেন। আপনার বন্ধু হেটে যাচ্ছে, আপনার পাশে আসার সাথে সাথে বন্ধুর পিঠে একটা ঘুষি দিলেন।

আবার ধরুন বন্ধুটি গাড়িতে দ্রুত আসছে বা দৌড়ে যাচ্ছে। এখন আপনাকে অতিক্রম করার পর ঘুষি দিলেন। 

এখন ভাবুন কোন ঘুষিতে ব্যাথা বেশি হবে? দৌড়ে বা গাড়িতে আসা বন্ধু বেশি ব্যাথা পাবেনা। কারন সে অতিক্রম করার পর চলন্ত ভাবে পিছে হাত ছুড়ে ঘুষি দেছেন। হাতের বেগ আর তার চলে যাওয়ার বেগ অনেক পার্থক বলে ঘুষিটি দ্রুত তার পিঠে লাগেনি।

এখানে ইঞ্জিনেও তাই, 

কাজেই শুধু সিসি নয়, আরও কিছু ফ্যাক্টর এক হলেই তবে ইঞ্জিন শক্তি পায়।

আর হ্যা সিসি যত বেশি হবে তেল খরচ তত বেশি হবে। 

কার্যপ্রণালী আরেকদিন বর্ণনা দেব।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
27 ফেব্রুয়ারি "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন mitu (267 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
4 Online Users
0 Member 4 Guest
Today Visits : 2063
Yesterday Visits : 8512
...