"বাংলা" বিভাগে করেছেন

পাছে লোকে কিছু বলে

করিতে পারি না কাজ
              সদা ভয় সদা লাজ
সংশয়ে সংকল্প সদা টলে,-
              পাছে লোকে কিছু বলে।
আড়ালে আড়ালে থাকি
              নীরবে আপনা ঢাকি,
সম্মুখে চরণ নাহি চলে
              পাছে লোকে কিছু বলে।
হৃদয়ে বুদবুদ মত
              উঠে শুভ্র চিন্তা কত,
মিশে যায় হৃদয়ের তলে,
              পাছে লোকে কিছু বলে।
কাঁদে প্রাণ যবে আঁখি
              সযতনে শুষ্ক রাখি;-
নিরমল নয়নের জলে,
              পাছে লোকে কিছু বলে।
একটি স্নেহের কথা
              প্রশমিতে পারে ব্যথা,-
চলে যাই উপেক্ষার ছলে,

              পাছে লোকে কিছু বলে


এখন উদ্দীপকটি পড়ে সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর দিন উদ্দীপক=গ্রীষ্মের ছুটি হলে শফিক বাড়িতে আসে।কয়েকজন যুবক ও সহপাঠী বন্ধুকে নিয়ে পরিকল্পনা করে গ্রামে নৈশবিদ্যালয় খোলার।সবাই তার এ প্রস্তাবকে স্বাগত জানায়।এজন্য সে প্রয়োজনীয় বইপত্, ঘর,শিক্ষক সবই নির্বাচন করে।এমন সময় গ্রামের একলোক বলে ইতঃপূর্ব কামাল মাস্টারের মতো মানুষ এ কাজে ফেল করেছে সেখানে কচি শিশুরা খুলবে নৈশবিদ্যালয় তাহলে সিদ্ধ ধানে গজ আসবে।একথা শুনে তারা দমে যায়। গ) .শফিকের উদ্যোগ ব্যাহত হওয়ার কারণ 'পাছে লোকে কিছু বলে' কবিতার আলোকে ব্যাখ্যা কর?  ঘ) শফিকের মাঝে কী ধরনের পরিবর্তন এলে সে তার পরিকল্পনাকে বাস্তবায়িত করতে সক্ষম হতোতা 'পাছে লোকে কিছু বলে'কবিতার আলোকে যুক্তিসহ লিখ?

1 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন
গ) উত্তরঃ গ্রীষ্মের ছুটিতে শফিক বাড়ীতে এসে তার সহপাঠীদের নিয়া গ্রামের অশিক্ষিত যুবক মানুষের মাঝে শিক্ষ্যার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য নৈশবিদ্যালয় স্থাপন করার উদ্যোগ গ্রহন করেন। কিন্তু তিনি ভাবেন, গ্রামের মানুষ এই বৃদ্ধ ও যুবক বয়সে কি আসলে শিখতে চাইবে? তিনি ভাবেন যদি লোকে এটি নিয়া নানা কথা বলে, যেমন আহা কাজ নাই তাই মানুষকে জ্বালাতন করতে চাইছে। বিদেশ থেকে গ্রামে এসে মাস্টারগিরি ফলানোর চেষ্টা করছে। এই সকল লোক নিন্দার ভয়ে শফিক তার সিদ্ধান্ত ছেড়ে দেওয়ারও কথা ভাবে। এখানে শফিক মূলত তার কাজের জন্য পাছের লোকের নিন্দা কথা ও সমালোচনায় লোক লজ্জ্বার ভয়ে তার মহৎ উদ্যোগ ছেড়ে দেওয়ায় তিনি ব্যর্থ হোন। শফিক যদি লোক নিন্দার ভয়ে পিছিয়ে না আসত তাহলে আপন লক্ষ্যে পৌছাতে পারতেন। তাই বলা যায় পাছে লোকে কিছু বলে কবিতার আলোকে শফিক নিন্দার ভয়ে পিছিয়ে এসে উদ্যোগে ব্যার্থ হোন।

ঘ) উত্তরঃ উদ্দিপকে শফিক গ্রীষ্মের ছুটিতে গ্রামে এসে গ্রামের কুসংস্কারাচ্ছন্ন অশীক্ষিত মানুষের মাঝে শিক্ষার আলো চড়াতে নৈশবিদ্যালয় স্থাপন করার উদ্যোগ গ্রহন করেও তা বাস্তবায়ন করার সাহস করেননি। কারন তিনি ভেবেছেন, এতে গ্রামের লোকেরা নানা কথা বলবে। তার নিন্দা করবে। কুৎসা রটনা করবে। তিনি ভাবেন রাতে মানুষকে স্কুলে আসতে বললে মানুষের অনেকে হয়ত আসবেনা। তারা এবং অন্যন্য পাছের লোকেরা বলবে যে বুড়ো বয়সে শেখাতে আইছে পন্ডিত সাহেব। শহর ছেড়ে গ্রামে এসেছে মাস্টারগিরি ফলাতে। এইসমস্ত লোক নিন্দার ভয়ে শফিক তার উদ্যোগ ছেড়ে দেন। কিন্তু শফিক যদি মানুষের এই নিন্দার ভয় না করতেন। তিনি যদি ভাবতেন কিছু লোক কিছু কথা বললেও যখন তারা উপকার পাবে তখন তাহারা ভাল বলবে, তাহলে তিনি নিন্দাকে ভয় পেতেন না। এগিয়ে যেতে পারতেন নিজের লক্ষ্যে। যেকোন ভাল উদ্যোগে মূর্খ লোকেরা নানা কথা বলে। সে কথায় কান দিলে চলে না। শফিক যদি সাহস করতেন, লোক নিন্দাকে তুচ্ছ করতেন। অন্যের কালিমা গায়ে লাগিয়ে আলোটুকু বেলানোর লক্ষ্য স্থির করে সকল বাধা পেরিয়ে উদ্যোগকে সফল করতে কাজ করতেন তাহলে তিনি সফল হতেন। "পাছে লোকে কিছু বলে" উদ্দিপকের আলোকে আমাদের তথা শফিককে লোকের কথা, তাদের নিন্দাকে তুচ্ছ করার সাহস ধারন করতে হবে তবেই জীবনে আসবে সফলতা।
করেছেন
Thank you  sir

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

5 জন সক্রিয় সদস্য
0 জন নিবন্ধিত সদস্য 5 জন অতিথি
আজকে পরিদর্শন : 2270
...