0 টি ভোট
"সাধারণ জিজ্ঞাসা" বিভাগে করেছেন (13 পয়েন্ট)
বন্ধ করেছেন
সংস্কৃতির উপাদানের পরিবর্তন কেমন
বন্ধ

2 উত্তর

+1 টি ভোট
করেছেন (1.1k পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

সংস্কৃতির উপাদান গুলোর পরিবর্তনের গতি এক নয় ।  সংস্কৃতি বলতে  আমরা বুঝি আমাদের জীবনধারাকে মানুষ যে ভাবে জীবন যাপন করে যেসব জিনিস ব্যবহার করে সেসব আচার-অনুষ্ঠান পালন করে যা কিছু সৃষ্টি করে সব নিয়ে তাদের সংস্কৃতি সংস্কৃতির উপাদান গুলোর পরিবর্তনের গতি এক নয় সংস্কৃতির উপাদান দুটি যথা বস্তুগত সংস্কৃতি আর অবস্তুগত সংস্কৃতি সংস্কৃতি সংস্কৃতির উপাদান গুলো দেখা যায় ধরা যায় অর্থাৎ দৃশ্যমান বস্তুগত সংস্কৃতির মধ্যে পড়ে টেলিভিশন মোবাইলফোন অলংকার আসবাবপত্র ইত্যাদি আর অবস্তুগত সংস্কৃতি হলো সেইসব সংস্কৃতির উপাদান যেগুলো দেখা যায় না ধরা যায় না অর্থাৎ অদৃশ্যমান অবস্তুগত সংস্কৃতির মধ্যে পড়ে ভাষা সংস্কৃতি চিন্তা-চেতনা ইত্যাদি একটি জিনিস ভালো করে খেয়াল করলে দেখা যাবে আমরা যত তাড়াতাড়ি টেলিভিশন ফ্রিজ ইত্যাদি গ্রহণ করি কিন্তু কিন্তু আমরা অন্যের চিন্তাচেতনা গ্রহণ করতে পারিনা যেমন আমরা যদি ফ্রিজ ব্যবহার করি অর্থাৎ যদি ফ্রিজ ব্যবহার শুরু করি তাহলে খুব তাড়াতাড়ি পারবো কিন্তু অর্থাৎ ব্যবহারবিধি গ্রহণ করতে পারিনা ধীরে ধীরে গ্রহণ করি অর্থাৎ এখানে বস্তুগত সংস্কৃতি ও অবস্তুগত সংস্কৃতির পরিবর্তনের গতির পার্থক্য হয়েছে বস্তুগত সংস্কৃতি শীঘ্রই এবং অবস্তুগত সংস্কৃতি ধীরে পরিবর্তন হয়েছে ঈদের উপাদানগুলোর এরূপ গতির পার্থক্য হলো উন্নয়নের বৈশিষ্ট্য যদি টেলিভিশন কিনে ব্যবহার শুরু করে আমরা খুব সহজে টেলিভিশন কিনতে ব্যবহার করতে পারি কিন্তু এর উপকারিতা সম্পর্কে আমাদের জানতে সময় লাগে এখানে টেলিভিশন সংস্কৃতি বস্তুগত উপাদান আর এর উপকারিতা অবস্তুগত উপাদান ।

করেছেন (13 পয়েন্ট)
উত্তরটির সকল লাইনে বিরামচিহ্ন নেই। একারনে বাক্যগুলো ঠিকমতো বোঝা যাচ্ছে না। সকল লাইনে বিরামচিহ্ন সংযোজন করুন।
0 টি ভোট
করেছেন (3.6k পয়েন্ট)

সংস্কৃতিঃ কোন অঞ্চলের সকল বা সমষ্টিগতভাবে কিছু মানুষের আচার-ব্যবহার, জীবিকার উপায়, সঙ্গীত, নৃত্য, ছড়া,সাহিত্য, নীতিকথা, গল্প, নাট্যশালা, সামাজিক রীতিনীতি ও সম্পর্ক, ধর্মীয় আচার আচরন, অনুষ্ঠান, বিনোদনের  ধরন, শিক্ষা দীক্ষা, ব্যবহার্য্য জিনিসপত্র, প্রথা  ইত্যাদির মাধ্যমে যে অভিব্যক্তির প্রকাশ পায় তাকেই সংস্কৃতি বলে।

নৃবিজ্ঞানী টেইলরের মতে

" সমাজের সদস্য হিসাবে অর্জিত নানা আচরন, যোগ্যতা, শিল্পকলা, বিশ্বাস, রীতি-নীতি, আদর্শ, আইন, প্রথা ইত্যাদির এক যৌগিক সমন্বয় হল সংস্কৃতি "


সংস্কৃতির উপাদানের পরিবর্তনঃ সমাজে মানুষ মিলেমিশে বসবাস করে। এবং সেই সমাজে বসবাস করতে যেয়ে নিজের প্রয়োজনে নানা কিছু সৃষ্টি করেছে ও একে অপরের সহযোগীতাপূর্ণ আচরন প্রদর্শন করে। পরিবেশ পরিস্থিতি ও যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নিজেদের প্রয়োজন মেটাতে বিভিন্ন সামাজিক শ্রেণী গড়ে এক এক দিক থেকে উপযোগী করতে তারা নানা পরিবর্তন পরিবর্ধন করে থাকে। একে সামাজিক উন্নয়ন বলে। অর্থাৎ সামাজিক উন্নয়নই হচ্ছে সংস্কৃতির পরিবর্তন। এই পরিবর্তন বা উন্নয়নের ধারা সংস্কৃতির নানা উপাদানগুলোর মাঝে আলাদা আলাদা ভাবে ঘটে থাকে।

সংস্কৃতির উপাদানগুলো সাধারনত বস্তুগত যা মানুষের দৈনন্দিন বা বিশেষ সময়ে ব্যবহার হয়ে থাকে এবং অবস্তুগত যা মানুষের আচার ব্যবহার রীতি-নীতি, অনুষ্ঠান, ধর্ম ইত্যাদি পালনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। তবে

যে কোন সংস্কৃতির জন্য নিচের উপাদানগুলো ও তার নানামুখি পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়ঃ-

বসতি এবং নৃতত্ত্ব: দশম শতাব্দী থেকে রচিত বাংলা ভাষার আদি নিদর্শন চর্যাপদে গ্রামের কোনো উল্লেখ নেই। নিরাপত্তা এবং উৎপাদনের জন্যে লোকেরা তখন বোধ হয় ‘পুরী’ এবং ‘নগরে’ বাস করতেন। বসতির এই বৈশিষ্ট্য উপ-নাগরিক সামন্ততান্ত্রিক সংস্কৃতি গড়ে ওঠার সম্ভবত প্রধান কারণ ছিল। এই নগর রাষ্ট্রের উন্নয়ন তথা সভ্যতার ক্রমবিকাশ ঘটে আরও সুখ সাচ্ছন্দ্যে সহজ জীবন গড়ার অভিপ্রায়ে। এবং এক এক জন মানুষের সামর্থ্য ও পছন্দ অপছন্দ রুচিবোধের ভিক্তিতে। ফলে সেখানে নানা রকম বৈচিত্রে পরিবর্তন ঘটে থাকে।


জাতিভেদ প্রথা: জাতিভেদ প্রথা বর্ণভেদেরই বহিঃপ্রকাশ। এই প্রথা অনুযায়ী ব্রহ্মন, ক্ষত্রিয়, বৈষ্য এবং শুদ্র, ধনী দরিদ্র ইত্যাদি শ্রেণী গড়ে ওঠে ও পরিবর্তন সাধিত হয়।


ভাষা: বাংলা ভাষা যেহেতু সংস্কৃত ভাষার মৌখিক রূপ প্রাকৃত থেকে উৎপন্ন, সে কারণে এ ভাষার শব্দাবলীর প্রধান ভাগই হয় সংস্কৃত, নয়তো সংস্কৃত শব্দের বিবর্তিত রূপ (যেমন চন্দ্র থেকে চাঁদ)। তবে এ অঞ্চলের আদি ভাষাগুলোর কিছু শব্দও বাংলায় রয়ে গেছে (যেমন চাউল, ঢেঁকি)। এছাড়া আঞ্চলিক, সাধু, চলিত, ইত্যাদি রুপ এক এক সমাজে প্রচলিত হয়ে পরিবর্তন ঘটে থাকে।


সাহিত্য, সঙ্গীত, নাটক ও থিয়েটার: সাহিত্যের মতো বাংলা সঙ্গীতের উত্তরাধিকারও ঐশ্বর্যমন্ডিত। চর্যাপদ এবং মধ্যযুগের সাহিত্যের অনেকটাই ছিল আসলে গান। কোন রাগ এবং তালে গাইতে হবে প্রতিটি চর্যার (শ্রীকৃষ্ণকীর্তনেরও) শুরুতেই তা উল্লিখিত হয়েছে। গৌড় ও বঙ্গাল এবং আরও পরে ভাটিয়ালির মতো রাগসমূহের নাম থেকে বোঝা যায় যে বঙ্গভূমিতে সুবদ্ধ এবং লোকসঙ্গীতের নিজস্ব ধারা সেকালেই গড়ে উঠেছিল।

ধর্মীয় বৈশিষ্ট্য:ধর্ম মানুষের বিশ্বাসের ভিক্তি। প্রতিটি ধর্ম সেই ধর্ম অনুসারীদের আলাদা আলাদা বিশ্বাস রীতি, অনুশাসন অনুষ্ঠান পালন ইত্যাদি নিয়ন্ত্রন ও পরিবর্তন ঘটিয়ে থাকে। যেমন ইসলামে একত্ত্ববাদ ও সনাতন ধর্মে বহুত্ত্ববাদের ভিক্তি গড়ে তোলে।


 রন্ধন বা খাদ্যাভ্যাস: বাংলাদেশের রান্না-বান্নার ঐতিহ্যের সাথে ভারতীয় ও মধ্যপ্রাচ্যের রান্নার প্রভাব রয়েছে। ভাত, ডাল ও মাছ বাংলাদেশীদের প্রধান খাবার, যার কারনে বলা হয়ে থাকে মাছে ভাতে বাঙালি। দেশে ছানা ও অন্যান্য প্রকারের মিষ্টান্ন , যেমন রসগোল্লা, চমচম বেশ জনপ্রিয়। কোন অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি প্রাপ্ত খাদ্যের উপর জীবিকা গড়ে ওঠে।

এবং সহজলভ্য খাদ্যবস্তু প্রাপ্তি ও অভ্যাস ইত্যাদির প্রভাবে এখানে এক এক গোষ্ঠীর মধ্যে বিভক্ত হয়ে পরিবর্তিত হয়ে থাকে।

পোষাক পরিচ্ছদ:পোষাক সংস্কৃতির একটি বিশেষ উপাদান। এক এক গোষ্ঠী, শ্রেণী, ধর্মীয় সম্প্রদায়ের জন্য পোষাকের পরিবর্তন ঘটে থাকে। আবার বয়স অনুসারে এর পরিবর্তন লক্ষ করা যায়।


 সামাজিক জীবনযাত্রা: মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশের প্রধান সামাজিক অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে মুসলমান সম্প্রদায়ের উত্সব ঈদুল ফিত্‌র , ঈদুল আজহা ও ঈদে মিলাদুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তবে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুর্গা পূজা, বৌদ্ধদের প্রধান উত্সব বুদ্ধ পূর্ণিমা, আর খ্রিস্টানদের বড়দিনও ঘটা করে পালিত হয়ে থাকে স্ব স্ব ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে। এই দিবসগুলোতে রাষ্ট্রীয় ছুটি থাকে। সার্বজনীন উত্সবের মধ্যে পহেলা বৈশাখ প্রধান।


এভাবে দেখা যায় সামাজিক নানা পরিবর্তনগুলো ভিন্ন ভিন্ন দিকে প্রবাহিত এবং এই প্রবাহের ধারা একই রকম নয়।

মানুষ নিজ প্রয়োজনে কোনটির ধারন ও উন্নয়ন ঘটায় আবার কোনটির অপ্রয়োজনে তিরোধান ঘটে।

এভাবে সংস্কৃতির উপাদান গুলোর পরিবর্তনের গতি ভিন্ন ও বহুমূখী।


এখানে ছোট আকারে এই প্রশ্নে একটি উত্তর রয়েছে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
+1 টি ভোট
2 টি উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
18 সেপ্টেম্বর 2019 "জীব বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Amrin Sultana (229 পয়েন্ট)
3 Online Users
0 Member 3 Guest
Today Visits : 4084
Yesterday Visits : 7651
...